Home মায়ের গর্ভ সাবধানঃ এই ৫টি ক্ষেত্রে আপনার জন্য গর্ভধারণ ঝুঁকিপূর্ণ হতে পারে।

সাবধানঃ এই ৫টি ক্ষেত্রে আপনার জন্য গর্ভধারণ ঝুঁকিপূর্ণ হতে পারে।

0 second read
0
3,815

আপনি মা হতে চান” পৃথিবীতে এটা আপনার জন্য মনে হয় সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ও সাথে সাথেই দারুণ আনন্দদায়ক একটি সিদ্ধান্ত। আপনি একটি নতুন প্রাণকে পৃথিবীতে আনতে যাচ্ছেন তাই মা হবেন এই সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে আপনাকে নিশ্চিত হতে হবে মা হওয়ার জন্য আপনি কতটুকু প্রস্তুত বা শারীরিকভাবে আপনি সম্পূর্ণ সুস্থ কিনা। আপনি নিশ্চয় চাইবেন না গর্ভধারণ অবস্থায় ঝুঁকির মধ্যে পড়তে বা নিজেকে একজন ঝুঁকিপূর্ণ হবু মা হিসেবে চিহ্নিত করতে। ঘাবড়াবেন না, আপনি শারীরিক ভাবে সুস্থ নন বলে মা হতে পারবেন ব্যাপারটা এমন নয়। সমস্যা থাকলে তার সমাধানও থাকে। তাই সবার আগে আপনাকে জানতে হবে কি কি কারনে আপনার গর্ভধারণ ঝুঁকিপূর্ণ হতে পারে আর কারন চিহ্নিত করতে পারলে প্রতিকারও করতে পারবেন। আজ এমন ৫টি কারনের সাথে আপনাদের পরিচয় করিয়ে দেবো যার জন্য আপনার গর্ভধারণ ঝুঁকিপূর্ণ হতে পারে।

১। ডায়াবেটিসঃ

গর্ভধারণের সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে আপনাকে নিশ্চিন্ত হয়ে নিতে হবে আপনার ডায়াবেটিস আছে কিনা। ঝুঁকিপূর্ণ গর্ভধারণের একটি অন্যতম কারন হিসেবে ডায়াবেটিসকে চিহ্নিত করা হয়। না আপনার ডায়াবেটিস আসে বলে গর্ভধারণ করতে পারবেন না এমনটি নয়, তবে হ্যাঁ গর্ভধারণ থেকে শুরু করে গর্ভাবস্থা ও সন্তান প্রসব এমনকি আপনার সন্তান বেড়ে ওঠা এই পুরো সময়টাই ডায়াবেটিস অনেক বড় রকমের অন্তরায় হিসেবে প্রতীয়মান হতে পারে। ডায়াবেটিসে আক্রান্ত মায়েদের সন্তান অস্বাভাবিক অবস্থায় জন্মগ্রহণ করতে পারে আবার দেখা যাই যে অনেক সময় সন্তান পেটে পানি নিয়ে অতিরিক্ত ওজন নিয়ে ভূমিষ্ঠ হচ্ছে। তাই যদি ডায়াবেটিস থেকে থাকে আগে আপনাকে সেটা নিয়ন্ত্রনে আনতে হবে এবং গর্ভধারণের আগে অবশ্যই ডক্টরের শরণাপন্ন হতে হবে। আর যদি গর্ভধারণের পর ডায়াবেটিস ধরা পরে সেক্ষেত্রে ডক্টরের সাথে যোগাযোগ অব্যাহত রাখতে হবে সাথে এটা নিশ্চিত করতে হবে আপনার সন্তান এমন কোন হসপিটাল বা ক্লিনিকে জন্মগ্রহণ করবে যেখানে  ভালোঅবসটেটিশিয়ান, অ্যানেশথেটিস, নিউনেটোলজিস্ট সহ সব ধরনের উন্নত সুযোগ সুবিধা থাকে। এছাড়া ডায়াবেটিস রোগিরা চিনিজাতীয় খাবার খেতে পারবেন না তাই চিনির বিকল্প হিসেবে Zerocal ব্যবহার করা যেতে পারে।

২। উচ্চ রক্তচাপঃ

গর্ভাবস্থায় উচ্চ রক্তচাপ বা উচ্চ রক্তচাপ জনিত সমস্যা শিশুমৃত্যু ও মাতৃমৃত্যুর আশংখা অনেকাংশে বাড়িয়ে দেয়। উচ্চ রক্তচাপ এর জন্য বাচ্চার ওজন কম হতে পারে, বাচ্চা অপরিনত হতে পারে এমনকি মায়ের আগে থেকে রক্তপাত শুরু হয়ে বাচ্চা মারা যেতে পারে। শুধু তাই নয় উচ্চ রক্তচাপ মায়ের হার্ট, চোখ ও কিডনির জন্য ক্ষতিকারক হয়। সন্তান নিতে ইচ্ছুক হলে আগে চিকিৎসকের কাছে যান, চেকআপ করিয়ে নিয়ে উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রনে আনুন। অনেক সময় গর্ভাবস্থায় বেশীরভাগ মায়েরাই উচ্চ রক্তচাপ জনিত সমস্যায় ভুগে থাকেন সেক্ষেত্রে নিয়মিত চেকআপ করাতে হবে। নিয়মিত ব্যায়াম, ওজন নিয়ন্ত্রনে রাখা ও নিউট্রিয়াস ডায়েট গ্রহন করা ইত্যাদির মাধ্যমে আপনি উচ্চ রক্ত চাপ নিয়ন্ত্রনে রাখতে পারেন।

৩। অতিরিক্ত ওজনঃ

সুস্বাস্থ্য আর অতিরিক্ত ওজন দুটি সম্পূর্ণ আলাদা ব্যাপার। আপনার অতিরিক্ত ওজন মানে এই নয় আপনি সুস্বাস্থ্যের অধিকারী। আপনার গর্ভাবস্থার জন্য আরও একটি অন্তরায় হতে পারে আপনার অতিরিক্ত ওজন। ঝুঁকিপূর্ণ গর্ভধারণের তালিকায় মাত্রাতিরিক্ত ওজন বেশ বড় একটা জায়গা দখল করে আছে। আপনি যদি অধিক ওজনের অধিকারিণী হয়ে থাকেন তাহলে সন্তান নেওয়ার আগে ওজন কমিয়ে ফেলা বুদ্ধিমানের কাজ হবে গর্ভকালীন সময় ‘বিএমআই’ বা বডি ম্যাস ইনডেক্সের পরিমান ৩০ কেজি মিটার স্কোয়ার বাতার বেশি হলে গর্ভবতী মা এবং তার সন্তানের গর্ভাবস্থায় ও জন্মের ঠিক পরপরই বিভিন্ন ধরনের সমস্যা হতে পারে।

৪। কিডনিতে সমস্যাঃ

কিডনি রোগে আক্রান্ত নারীদের গর্ভধারণে প্রবল সমস্যা সৃষ্টি করে। আপনি যদি নিশ্চিত হয়ে থাকেন আপনার কিডনিতে সমস্যা রয়েছে তাহলে হুটহাট গর্ভধারণ না করাই ভালো। আপনি সিদ্ধান্ত নেন যদি যে সন্তান নিতে চান তাহলে সবার আগে নিজের শরীরকে তার জন্য প্রস্তুত করতে হবে। ডাক্তারের কাছে যান, ডাক্তারের পরামর্শ নেন কি করবেন আর কিভাবে নিজের আর অনাগত সন্তানের জীবন ঝুঁকির মধ্যে না ফেলেই গর্ভধারণ করতে পারেন। কিডনিতে সমস্যা থাকলে গর্ভকালীন সময়ে আপনি সবচেয়ে বেশী যেটার ঝুঁকির মধ্যে থাকবেন সেটা হল গর্ভপাতের আশঙ্কা। আরও একটা ব্যাপার ঘটে সেটা হল কিডনি জনিত সমস্যায় আক্রান্ত হয়ে থাকলে আপনার ঘন ঘন ঔষধ, খাদ্যাভ্যাস ও চিকিৎসার ধরণ পরিবর্তন হতে পারে তাই উচিৎ হবে যতটা সম্ভব আপনার চিকিৎসকের সাথে যোগাযোগ অব্যাহত রাখা।

৫। এইচআইভিঃ

আপনি যদি এইচআইভি পজেটিভ হন তাহলে আরেকবার ভাবুন আপনি সত্যিই গর্ভধারণ করতে চান কিনা! এইচআইভির জীবাণু যদি আপনার শরীরে থাকে তাহলে এটি আস্তে আস্তে আপনার শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা নষ্ট করে দিতে থাকবে। যেখানে আপনি নিজের শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা নিঃশেষ হয়ে যাচ্ছে সেখানে কি আপনি আরেকটি নতুন প্রাণের রক্ষা বা সুরক্ষা নিশ্চিত করতে পারবেন?

এরপরেও যদি চান আপনি গর্ভধারণ করবেন তাহলে বিশেষজ্ঞ কোন চিকিৎসকের শরণাপন্ন হন। কারন কিছুটা হলেও আশার কথা হল কিছু কিছু ক্ষেত্রে এইচআইভি পজেটিভ নারীর গর্ভের ভ্রূণের এইচআইভি সংক্রমণের ঝুঁকি থেকে রক্ষা করা সম্ভব যদিও সেটা খুব কম সংখ্যক। পরিশেষে আরও কিছু কথা বলার প্রয়োজন বলে মনে করছি। শুধুমাত্র শারীরিক সমস্যায় নয়। আপনার কিছু বদঅভ্যাস অথবা জীবন যাপনের ধরণ গর্ভাবস্থায় ঝুঁকির কারন হতে পারে। মদ্যপান, ধূমপান বা যে কোন ধরণের নেশা জাতীয় দ্রব্য গ্রহণ আপনার গর্ভধারণের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ। নেশা জাতীয় দ্রব্য আপনার গর্ভধারণের ক্ষমতা তো হ্রাস করেই সাথে আপনার সন্তান নানা ধরণের শারীরিক সমস্যা নিয়ে জন্ম গ্রহণ করতে পারে।

শুধু তাই নয়, কম বয়সে গর্ভধারণ, প্রথম সন্তান জন্মদানের পর পরবর্তী সন্তান জন্মদানের মধ্যকার সময়ের ব্যবধান ও হরমোনাল সমস্যা এসব কিছুও আপনার গর্ভাবস্থায় ঝুঁকির মাত্রা বাড়িয়ে দেয়। আপনার ও আপনার শিশুর সুন্দর আর সুস্থ জীবন যাপনের লক্ষ্যে মা হওয়ার সিদ্ধান্ত যখনই নেবেন নির্ভরযোগ্য কোন চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

লিখেছেনঃ রুমানা রহমান

Load More Related Articles
Load More In মায়ের গর্ভ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Check Also

শিশুর বেড়ে ওঠা । ষষ্ট মাস

পঞ্চম থেকে ষষ্ঠ  মাস আপনার বাচ্চার বৃদ্ধির ক্ষেত্রে একটি নতুন অধ্যায় এর সূচনা। এ সময় বাচ্চ…