শিশু লালন পালনে দুই ভুল ধারণা

শিশু লালন পালনের বিষয়ে অনেকের মধ্যেই ভুল ধারণা প্রচলিত রয়েছে। এসব ভুল ধারণার কারণে মা-শিশু উভয়কেই কিছু না কিছু স্বাস্থ্য সমস্যার মুখোমুখি হতে হয়। এমন দুটো ভুল ধারণার কথা তুলে ধরা হলো।

১. ভুল ধারণা : বুকের দুধ পানকারী শিশুকে প্রয়োজনীয় পরিমাণ পানি পান করানো উচিত।

প্রকৃত সত্য : প্রকৃতপক্ষে নবজাত শিশু থেকে ছয় মাস বয়স পর্যন্ত শিশুর জন্য বুকের দুধই যথেষ্ট। এই সময় শিশুকে আলাদাভাবে পানি পান করানোর কোনো দরকার নেই। কারণ, বুকের দুধেই রয়েছে পর্যাপ্ত পরিমাণ পানি ও পুষ্টি। এটি শিশুর পুষ্টি চাহিদা মেটাতে সক্ষম। বরং তখন শিশুকে পৃথকভাবে পানি পান করানো হলে শিশুর পাকস্থলী পূর্ণ হয়ে যায়। এতে শিশু আর বুকের দুধ খেতে চায় না। পুষ্টি থেকে বঞ্চিত হয়। জন্মের পর শিশুকে শুধু বুকের দুধই দেওয়া উচিত। বুকের দুধের সঙ্গে পানি কিংবা অন্য কোনো তরল খাবার দেওয়ার একদম দরকার নেই।

২. ভুল ধারণা : শিশুকে সব সময় একদিকে কাত করে শোয়ালে মাথার আকৃতি বদলে যেতে পারে।

প্রকৃত সত্য : যদি কোনো শিশুকে সব সময় একদিকে কাত করে শোয়ানো হয়, তাহলে শিশুর মাথার আকৃতি আপাতত কিছুটা পরিবর্তন মনে হবে। মাথার আকৃতির এই পরিবর্তন খুবই সাময়িক। শিশু বেড়ে ওঠার সঙ্গে সঙ্গে মাথার আকৃতি সহজভাবেই স্বাভাবিক হয়ে যায়। শিশুর মাথার হাড়গুলোর মধ্যকার জয়েন্ট বা সংযোগ শিশু অবস্থায় ঢিলে থাকে বলে একদিকে শোয়ালে মাথার আকৃতি বদলে যায়। যতদিন মাথার হাড়ের সংযোগগুলো স্থায়ীভাবে সংযুক্ত না হয়, ততদিন এমনটি হতে পারে। হাড়ের সংযোগ স্থায়ীভাবে সংযুক্ত হওয়ার পর মাথার আকৃতির আর কোনো পরিবর্তন হয় না।

Sharing is caring!

Comments are closed.

error: Content is protected !!