শিশুর কৃমি প্রতিরোধে আট পরামর্শ

সারা বিশ্বেই বিভিন্ন রকম কৃমির প্রাদুর্ভাব দেখা যায়। আমাদের দেশেও এর প্রাদুর্ভাব রয়েছে। শিশুরা এ সমস্যায় একটু যেন বেশি আক্রান্ত হয়। তবে কিছু বিষয় মেনে চললে কৃমি অনেকটাই প্রতিরোধ করা যায়।

যেসব উপায়ে কৃমি প্রতিরোধ করা যেতে পারে :

  • ১. জন্মের পর প্রথম পাঁচ মাস বয়স পর্যন্ত শিশুকে শুধু বুকের দুধ খাওয়ানো। এ সময় অন্য কোনো খাবার বা পানীয়ের প্রয়োজন নেই।
  • ২. পাঁচ মাস বয়স হলে মায়ের দুধের পাশাপাশি অন্যান্য খাবার স্বাস্থ্যসম্মত উপায়ে তৈরি করে খেতে দেওয়া।
  • ৩. খাবার তৈরির আগে এবং খাবার দেওয়ার পরে ভালো করে সাবান দিয়ে হাত ধুয়ে নিতে হবে। খাবার ভালো করে সেদ্ধ করে পরিষ্কার পাত্রে রাখতে হবে।
  • ৪. পরিষ্কার ও নিরাপদ পানির ব্যবহার ব্যবহার—খাবার, ধোয়া, মোছা, রান্না ইত্যাদি কাজে নিরাপদ পানি ব্যবহার ও সরবরাহ নিশ্চিত করতে হবে। এসব ক্ষেত্রে কখনোই দূষিত পানি ব্যবহার করা যাবে না।

 

  • ৫. সাবান দিয়ে অথবা ছাই দিয়ে হাত ধোয়া—পরিবারের প্রত্যেক সদস্যকে মলত্যাগের পর খাবার তৈরি এবং পরিবেশনের আগে ও খাবার গ্রহণের আগে ভালো করে সাবান দিয়ে হাত ধুতে হবে।
  • ৬. স্যানিটারি ল্যাট্রিনের ব্যবহার এবং স্বাস্থ্যসম্মত উপায়ে পয়োনিষ্কাশন পদ্ধতি গড়ে তুলতে হবে।
  • ৭. ব্যক্তিগত পর্যায়ে স্বাস্থ্য সচেতনতা বৃদ্ধি করতে হবে।
  • ৮. খালি পায়ে হাঁটার অভ্যাস ত্যাগ করতে হবে।

লেখক : সহকারী অধ্যাপক, হলি ফ্যামিলি রেড ক্রিসেন্ট মেডিকেল কলেজ।

Source:ntv

Sharing is caring!

Comments are closed.

error: Content is protected !!