Home শিশুর খাদ্য কোন ধরণের খাবারগুলো শিশুর উচ্চতা বৃদ্ধিতে সাহায্য করবে!

কোন ধরণের খাবারগুলো শিশুর উচ্চতা বৃদ্ধিতে সাহায্য করবে!

1 second read
0
2,299

বয়স অনুযায়ী সন্তান ঠিকমতো বেড়ে উঠছে কি-না বাবা-মায়েদের খেয়াল রাখা উচিত।আমরা সবাই জানি লম্বা হওয়ার ব্যপারটি সম্পূর্ণ জেনেটিক। একটি নির্দিষ্ট বয়স পর্যন্ত মানবদেহের বৃদ্ধি ঘটে, এমনকি উচ্চতা বাড়ে। তবে এর সঙ্গে অবশ্যই ব্যাপারটি নির্ভর করে খাওয়া দাওয়ার ওপর। সবারই জেনে রাখা ভাল বিশেষ করে প্রতিটি মায়ের খাবারের পুষ্টিগুণ সম্পর্কে সচেতনতা প্রয়োজন।খাবারে পর্যাপ্ত পুষ্টির অভাবে অনেক ক্ষেত্রেই সঠিক বৃদ্ধি ঘটে না দেহের। আবার এমন কিছু খাবার আছে, যা দেহের বৃদ্ধির এই প্রক্রিয়াকে ত্বরান্তিত করে। জেনে নেয়া যাক, শরীরের বৃদ্ধিতে বা লম্বা হতে সাহায্য করে এমন কিছু খাবারের নাম।

ওটমিল: শিশুর উচ্চতা বৃদ্ধিতে ওটমিল ম্যাজিকের মত কাজ করে। এটি প্রোটিনের অন্যতম উৎস। ওটমিল পেশীশক্তি বৃদ্ধি করে এবং চর্বি হ্রাস করে। সকালের নাস্তায় ওটমিল রাখতে পারেন।
দুধ: প্রোটিন, ক্যালসিয়াম, মিনারেলসহ অনেকগুলো ভিটামিন পাওয়া যায় এক গ্লাস দুধে। ভিটামিন ডি, ক্যালসিয়াম হাড় মজবুত করে তোলে। আপনার শিশুটি যদি ২ বছরের নিচে হয় তবে ফুল ক্রিম দুধ খাওয়াবেন। দুধে থাকা ফ্যাট তার শরীর এবং মস্তিষ্কের জন্য বেশ উপকারী। টকদই এবং পনির দুধের পরিবর্তে খাওয়াতে পারেন।
পালং শাক: পালং শাককে সুপার সবজি বলা হয়ে থাকে। এটি আপনার শিশুর হাড় মজবুত করার পাশাপাশি আয়রন এবং ক্যালসিয়ামের চাহিদা পূরণ করে থাকে। আয়রন এবং ক্যালসিয়াম শিশুকে লম্বা করতে সাহায্য করে থাকে।
মাছ: মাছে প্রচুর পরিমাণ প্রোটিন এবং ভিটামিন ডি আছে। যা শিশুর উচ্চতা বৃদ্ধিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। কিছু মাছ স্যামন, টুনা ইত্যাদি সামুদ্রিক মাছ প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় রাখুন।
ডিম: প্রোটিনের অন্যতম উৎস হল ডিম। এই ডিম শিশুর উচ্চতা বৃদ্ধিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। আপনার শিশুর খাদ্যতালিকায় একটি ডিম রাখুন। তা সিদ্ধ হতে পারে কিংবা অন্যকোনভাবে ডিম খাওয়াতে পারেন।
গাজর: ভিটামিন এ সমৃদ্ধ এই সবজিটি প্রোটিন সমন্বয় করতে সাহায্য করে। গাজর রান্না করে খাওয়ার চেয়ে কাঁচা খাওয়া বেশ উপকারী। কাঁচা গাজর সালাদ অথবা রস করে আপনার শিশুকে খাওয়াতে পারেন।
সয়াবিন: প্রোটিনের আরেকটি অন্যতম উৎস হল সয়াবিন। এটি হাড় এবং পেশী মজবুত করতে ভূমিকা রাখে। সয়াবিন সবজির মত করে রান্না করে আপনার শিশুকে খাওয়াতে পারবেন।
শস্যদানা: শস্য শক্তির ভান্ডার। তারা ফাইবার, ভিটামিন, আয়রন, ম্যাগনেসিয়াম এবং সেলেনিয়াম এর একটি খুব ভাল উৎস। শস্য আপনার সন্তানের ক্রমবর্ধমান বৃদ্ধি ঘটাবে। গুরুত্বপূর্ণ যে ক্যালোরি সমৃদ্ধ শস্য গুলো হচ্ছে, বাদামী চাল, গোটা শস্য, ভুট্টা এবং গমের ফুড। এগুলো আপনার সন্তানের উচ্চতা বাড়াতে সাহায্য করবে।
তাজা ফলমূল ও শাকসবজি: তাজা ফল ও শাকসবজি সবচেয়ে দ্রুত শিশুর বৃদ্ধি ঘটায়। এতে থাকে ফাইবার, ভিটামিন, পটাশিয়াম এবং ফলেটস যা শিশুর হাড় উন্নয়নে সহায়তা করবে। ভিটামিন এ আপনার সন্তানের হাড় এবং টিস্যু উন্নয়নে সাহায্য করবে। ভিটামিন এর ভালো কিছু উৎস হচ্ছে পেঁপে, আপেল,গাজর, ফুলকপি, শাক, মিষ্টি আলু, আম ও তরমুজ ইত্যাদি।
বাদাম: বাদাম বা কাজুবাদামও স্বাস্থ্য উপযোগী একটি খাবার। এটিতে থাকা বিভিন্ন প্রোটিন, ভিটামিন দেহের বিভিন্ন পুষ্টি যোগায়, এবং লম্বা হতেও সহায়তা করে।

Load More Related Articles
Load More In শিশুর খাদ্য

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Check Also

শিশুর বেড়ে ওঠা । ষষ্ট মাস

পঞ্চম থেকে ষষ্ঠ  মাস আপনার বাচ্চার বৃদ্ধির ক্ষেত্রে একটি নতুন অধ্যায় এর সূচনা। এ সময় বাচ্চ…