শীতে শিশুর জন্য কোন তেল ভালো?

শীতে শিশুদের ত্বক হয়ে পড়ে শুষ্ক। আর শিশুদের ত্বক নাজুক বলে শুষ্ক ত্বক দ্রুতই ফেটে যায়। তাই ত্বকের সুরক্ষায় অনেক মায়েরই প্রথম পছন্দ তেল। কিন্তু কোন তেল বাচ্চার জন্য নিরাপদ কিংবা কখন তেল মাখা যাবে, এসব বিষয় নিয়ে আছে নানা উৎকণ্ঠা। শিশুদের আদৌ তেল মাখার প্রয়োজন আছে কি না, এ নিয়েও বিশেষজ্ঞদের মাঝে মতের ভিন্নতা আছে।
সাম্প্রতিক এক গবেষণায় দেখা গেছে, খুব ছোট শিশুদের, অর্থাৎ নবজাতকদের শরীরে তেল মাখালে তা লাভের চেয়ে ক্ষতিই করে বেশি। গবেষকেরা দেখিয়েছেন যে গায়ে তেল মাখেনি এমন বাচ্চাদের ত্বক বেশি মজবুত।

আসলে আমাদের ত্বকের ওপরের পাতলা আবরণের নিচেই চর্বি বা ফ্যাটের স্তর থাকে। তেল মাখলে এই চর্বির স্তর পাতলা হয়, অর্থাৎ সুগঠিত হয় না। এর ফলে শিশুর শরীর সহজে শীতল হয়ে পড়তে পারে। এ ছাড়া ত্বকে সংক্রমণের ঝুঁকিও বাড়তে পারে।
একটু বড় বাচ্চাদের অবশ্য তেল মাখা যাবে। এ ক্ষেত্রে খোলা তেল ব্যবহার না করে ভালো কোনো কোম্পানির বোতলজাত তেল ব্যবহার করা উচিত। এসব তেল রিফাইন্ড থাকে বলে অ্যালার্জির ঝুঁকি কম থাকে। সরষের তেল শিশুর ত্বকের জন্য ভালো নয়। কারণ, এই তেল মাখলে ত্বক চিটচিটে হয়ে যায়। ফলে ধুলাবালি সহজে ত্বকে আটকে যায়। আবার ঘন বলে এই তেল লোমকূপ বন্ধ করে দিয়ে সংক্রমণও ঘটাতে পারে।

সবচেয়ে ভালো হয়, যদি লিনোলেইক অ্যাসিড-সমৃদ্ধ তেল ব্যবহার করা যায়। এটি একধরনের ফ্যাটি অ্যাসিড, যা ত্বকের সুরক্ষা দেয়। সূর্যমুখী তেলে এটি বেশি থাকে। যাদের একজিমা আছে, তাদের অলিভ অয়েল ব্যবহার না করাই ভালো।
অভ্যাসবশত অনেকেই মালিশের জন্য শিশুকে তেল মাখাতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন। অনেকে আবার গোসলের আগে তেল মাখান, এটা অবশ্য মন্দ নয়।

তবে বাইরে যাওয়ার সময় তেল মাখা উচিত নয়। যাদের ত্বক খুব বেশি শুষ্ক, তাদের জন্যও তেল উপযুক্ত নয়। যদি এই শীতে বাচ্চার শুষ্কতার কথাই বিবেচনায় নেন, তবে তেলের পরিবর্তে ভ্যাসলিন কিংবা লোশন হতে পারে উপযুক্ত বিকল্প।
শিশু বিভাগ, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল

সংগ্রহঃ প্রথম আলো

Sharing is caring!

Comments are closed.